Monas 10 এর কাজ কি? দাম কত? ব্যবহার নিয়ম ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

আসসালামুয়ালাইকুম আশাকরি সকলেই ভালো আছেন। ইইই পিডিয়া এর পক্ষ থেকে আপনাদের সকলকে স্বাগতম। আজকে আমরা আলোচনা করব, বাংলাদেশের বহুল প্রচলিত monas 10 এর কাজ সম্পর্কে। অর্থাৎ monas 10 এর কাজ কি তা জানব।

ডাক্তারের কাছে গেলে অনেকেই এই monas টেবলিটটি খেতে দেওয়া হয়। এই মনাস ট্যাবলেট কি কি কাজ করে? এটা কেন খাওয়া হয়? ডাক্তার এটা আপনাদের কেন লিখে? এ সকল তথ্য নিয়েই আজকে আমরা আলোচনা করবো আমাদের এই আর্টিকেলে।

 

Monas 10, 5, 4 এর প্রস্তুতকারক কে?

মনাস ট্যাবলেট প্রস্তুতকারক হচ্ছে একমি ফার্মাসিটিক্যালস লিমিটেড কোম্পানি। এর জেনেরিক নাম হল মন্টিলুকাস্ট। মন্টিলুকাস্ট 10,5,4 এমজি পাওয়া যায় বাজারে। মন্টিলুকাস্ট গ্রুপের এই ঔষধটি বিভিন্ন কোম্পানি বাজারে নিয়ে এসেছে বিভিন্ন নামে। যেমন, মনাস, মনটেয়ার, মন্টিন, মন্টিলুকাস্ট, মন্টেলা, এরণ, প্রোভেয়ার, মনোকাস, এছাড়াও বিভিন্ন কোম্পানির বিভিন্ন নামে রয়েছে। তো আমি এই লেখাতে এক এক সময় এক এক নামে ডাকবো। ঠিক আছে?

মনাস ট্যাবলেট যেহেতু ব্র্যান্ড লিডার আর, এই মনাস ঔষুধটি আপনারা অনেকেই চিনেন। তার জন্য আমরা এই ট্যাবলেটটির বিষয় নিয়ে আপনাদের সাথে আলোচনা করব।

 

Monas 10 এর কাজ কি?

Monas 10 এর কাজ কি? এই প্রশ্নটি প্রায় অনেকেই করে থাকে। সাধারণত ঠান্ডা, কাশি এসব রোগের জন্যই Montus 10 MG Tablet আমরা খেয়ে থাকি। ডাক্তাররা সাধারণত এই মনাস ট্যাবলেট দিয়ে থাকে এজমা, সিওপিডি, শ্বাসকষ্ট, কাশি এবং বিভিন্ন ধরনের এলার্জি সমস্যার জন্য। যেসকল রোগীদের দীর্ঘদিন যাবৎ কাশি হচ্ছে, শ্বাসকষ্টের সমস্যা হচ্ছে, বিভিন্ন এজমা জনিত কারণ রয়েছে এবং চুলকানি ও এলার্জি এসব চিকিৎসায় এটি ব্যবহার করা হয়।

অনেক রোগীদের শারীরিক ব্যায়াম করার কারণে এজমা হতে পারে। এই এজমা চিকিৎসায়ও মনাস ট্যাবলেট ব্যবহার করা হয়। অর্থাৎ এই ট্যাবলেটটি দীর্ঘমেয়াদী চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়।

 

এই ওষুধ কিভাবে কাজ করে?

মন্টিলুকাস্ট ওষুধটি শরীরের এলার্জি সৃষ্টিকারী নির্দিষ্ট কিছু রাসায়নিকের কার্যকলাপকে বাধা দেয়। এটি লিউকোট্রিন নামক একটি রাসায়নিক ম্যাসেঞ্জারের ক্রিয়াকে ব্লক করে দেয়। ওষুধটি আপনি হাঁপানি প্রতিরোধ করতে এবং এলার্জির লক্ষণগুলিকে দমন করার জন্য ব্যবহার করতে পারেন।

 

Monas 10 কখন খেতে হয়?

যে কোন ঔষুধ ১ম খেতে গেলে এই প্রশ্ন চলে আসে। এটি কি খালি পেটে খাবার খাওয়ার আগে নাকি খাবার খাওয়ার পরে খেতে হয়?  এই ওষুধটি অবশ্যই আপনি খাবার খাওয়ার পরে খাবেন।

 

মোনাস ১০ কতদিন খেতে হয়?

এই মোনাস ট্যাবলেটটি খেলে তাৎক্ষণিক কোনো রেজাল্ট পাওয়া যায়না। সর্বনিম্ন 10 থেকে 15 দিন খাওয়ার পর এর রেজাল্ট দেখা যায়।

যে সকল রোগীদের দীর্ঘদিন যাবৎ শ্বাসকষ্ট আছে। ধুলোবালিতে গেলেই শ্বাসকষ্ট, কাশি এবং অ্যালার্জিজনিত সমস্যা দেখা যায়। এছাড়াও এমন কিছু রোগী আছে, যাদের দিনের বেলা শ্বাসকষ্টে তেমন কোনো সমস্যা হয় না, কিন্তু রাতের বেলা কাশি ঠান্ডা শ্বাসকষ্ট অ্যালার্জিজনিত সমস্যা বেশি দেখা যায়। তাদের ক্ষেত্রেও এটি ব্যবহার করা হয়।

বর্তমানে এই Monas 10,5,4 mg tablet গুলো বহুল প্রচলিত ঔষধ এবং খুবই জনপ্রিয়। অধিকাংশ এজমা, সিওপিডি, শ্বাসকষ্টজনিত এবং বিভিন্ন এলার্জি জনিত সমস্যায় মন্টাস ১০ এম জি ট্যাবলেটটি (Montus 10 MG Tablet) ব্যবহার করা হয়। মন্টিলুকাস্ট গ্রুপের এই ঔষুধটি ডাক্তারদের কাছেও খুবই পছন্দের একটা ঔষধ।

অনেকেই বলে থাকে, মনাস ট্যাবলেট টি পাঁচ-ছয়দিন খাওয়া হয়েছে। তারপরও কোন রেজাল্ট পাচ্ছে না। তাদের জন্য বলব, এই ঔষধটি ডাক্তাররা সাধারণত তিন মাস থেকে চার মাস পর্যন্ত খেতে বলে। এটি একটি দীর্ঘমেয়াদী ঔষুধ। দীর্ঘদিন খাওয়ার ফলে আস্তে আস্তে আপনার শরীরে কাজ করা শুরু করবে। এটা দুই-তিনদিন খাওয়ার ফলে কোনো কাজ হবে না। শরীরের আক্রমণ প্রতিরোধে এবং অ্যাজমার চিকিৎসায় মনাস ট্যাবলেট টি খাওয়া হয়।

ব্যায়াম জনিত শ্বাসনালীর সংকোচন ও প্রতিরোধেও মনাস ট্যাবলেটটি খাওয়া হয়। এলার্জিক রাইনাইটিস এর উপসর্গ নিরাময়ে, মৌসুমী এলার্জিক রাইনাইটিস এবং প্রিনিয়াল এলার্জি রাইনাইটিস রুধে খাওয়া হয়। আশা করি এতক্ষণে বুঝে গেছেন monas 10 এর কাজ কি?

আপনার চিকিৎসক আপনাকে যতদিন পর্যন্ত এটি গ্রহণ করার পরামর্শ দিবে। ততদিন পর্যন্ত মন্টাস ১০ এম জি ট্যাবলেট (Montus 10 MG Tablet) ব্যবহার করা উচিত?

 

Monas ট্যাবলেটটি ব্যবহারের নিয়ম

বন্ধুরা এখন আমরা জানব, এই monas ট্যাবলেটটি খাবার নিয়ম সম্পর্কে।

  • প্রাপ্তবয়স্ক এবং কিশোর-কিশোরীদের হাঁপানি বা মৌসুমী এলার্জিক রাইনাইটিস রয়েছে যাদের, তারা 15 বছর বা তার বেশি বয়সের প্রাপ্ত বয়স্ক এবং কিশোর কিশোরীদের জন্য মন্টিলুকাস্ট ১০ মিলিগ্রাম ট্যাবলেট প্রতিদিন ১ বার।
  • হাঁপানি বা মৌসুমী এলার্জিক রাইনাইটিস সহ শিশু রোগীদের ক্ষেত্রে, 6 থেকে 14 বছর বয়সী শিশুদের জন্য মন্টিলুকাস্ট 5 মিলিগ্রাম ট্যাবলেট প্রতিদিন একবার করে খেতে হবে।
  • দুই বছর থেকে চার বছর বয়সী শিশু রোগীদের জন্য মন্টিলুকাস্ট 4 মিলিগ্রাম ট্যাবলেট দিনে একবার খেতে হবে।
  • 6 মাস থেকে পাঁচ বছর বয়সী শিশু রোগীদের জন্য মন্টিলুকাস্ট 4 মিলিগ্রাম প্রতিদিন একবার। এটি সরাসরি মুখে দেওয়া যেতে পারে। বা ঘরের তাপমাত্রায় 1 চামচ ঠান্ডা জল বা নরম খাবারের সাথে মিশ্রিত করা যেতে পারে।

 

মোনাস ১০ এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

সব ওষুধের মতো monas ট্যাবলেটেও কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে। কিছু সাধারণ পার্শপ্রতিক্রিয়া হল: ডায়রিয়া, জ্বর, মাথা ব্যাথা, পরিপাক যন্ত্রের অস্বস্থি, বমি বমি ভাব, বমি, ত্বকের বিরূপ প্রতিক্রিয়া, ঊর্ধ্ব শ্বাসনালির সংক্রমণ।

এছাড়াও কিছু অস্বাভাবিক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও রয়েছে যেমন: দুশ্চিন্তা, পেশির বেদনা, দুর্বলতা , অস্বাভাবিক আচরণ, হতাশা, মাথা ঘোরা, তন্দ্রাচ্ছন্নতা, রক্তক্ষরণ, মুখ শোষ্কতা, বিরক্তিভাব, অসুস্থতা বোধ, মাংসপেশির বেদনা, ফুলে ওঠা, খিঁচুনি, অস্বাভাবিক অনুভূতি, ঘুমের সমস্যা ইত্যাদি।

যেহেতু এই ঔষুধটি গ্রহণের ফলে অনেক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা যায়। সুতরাং, এই ওষুধটি খাওয়ার পূর্বে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ খেতে হবে। একা একা ওষুধ খাওয়া যাবে না। এতে হিতে বিপরীত হতে পারে। আমরা শুধুমাত্র আপনাদের বেসিক কিছু ধারনা দেয়ার জন্য আর্টিকেল তৈরি করছি। আমাদের আর্টিকেল গুলো পড়ে ওষুধ কিনে খাবেন না। ওষুধ খাওয়ার পূর্বে অবশ্যই রেজিস্টার্ড চিকিৎসকের পরামর্শ নেবেন।

 

Monas 10, 5, 4 অতিরিক্ত খেলে কি ক্ষতি হবে?

বন্ধুরা চলুন এখন আমরা জেনে নেই মন্টিলুকাস্ট monas 10 mg tablet টি মাত্রাধিক্যতা বেশি খেলে কি কি সমস্যা হতে পারে? অধিকাংশ ক্ষেত্রে মাত্রাধিক্যতা নির্দিষ্ট তথ্য উপাত্ত পাওয়া যায়নি। প্রায়ই ঘটে, এমন বিরূপ অভিজ্ঞতা গুলি মন্টিলুকাস্ট এর নিরাপত্তা নিশ্চিতের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ এবং এতে পেট ব্যথা, তন্দ্রাচ্ছন্নতা, তৃষ্ণা, মাথা ব্যাথা, বমি বমি ভাব এবং সাইকো মোটর হাইপেরাক্টিভিটি পরিলক্ষিত হয়।

 

সাবধানতা

মাত্রাধিক এর ক্ষেত্রে প্রয়োজন হলে সাধারণ সহায়ক ব্যবস্থা সমূহ: যেমন, পরিপাকতন্ত্র থেকে অশোধিত পদার্থ অপসারণ, ক্লিনিক্যাল পর্যবেক্ষণ এবং সহায়ক চিকিৎসা করা উচিত।

 

Monas 10 price in Bangladesh

মোনাস ১০ একটার দাম কত? এখন আমরা জানবো এই ঔষধটি দাম সম্পর্কে। monas 10 mg প্রতিটি tablet এর দাম হল 17.50 tk। অর্থাৎ ১৭ টাকা ৫০ পয়সা।

ধন্যবাদ সকলকে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ার জন্য। আমাদের আর্টিকেল গুলো যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে। তাহলে শেয়ার করবেন। সকলে ভাল থাকবেন, সুস্থ থাকবেন। আসসালামু আলাইকুম।

আসসালামু আলাইকুম। ১ম পরিচয়, আমি একজন মুসলমান। আমি শরিফুল ইসলাম। পেশায় একজন বৈদ্যুতিক ইন্জিনিয়ার। ফ্রি সময়ে আমার প্রিয় পাঠকদের জন্য ব্লগ লিখতে ভালোবাসি।

Sharing Is Caring:

Leave a Comment